izmir kizlar
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

সিএন্ডবি কলোনীর মেয়াদোর্ত্তীন ইট যাচ্ছে খুরুশকুল আশ্রয়ন প্রকল্পের রাস্তা নির্মাণ কাজে

koroskol-2.jpg

মাহাবুবুর রহমান।।

কক্সবাজার শহরের পরিত্যাক্ত সিএনবি কলোনীর অর্ধশত বছরের পুরানো ইট দিয়ে নির্মাণ হচ্ছে খুরুশকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের রাস্তা। সিএন্ডবি কলোনী থেকে সেই মেয়াদোত্তীর্ণ ইট ভেঙ্গে খুরুশকুল আশ্রয়ন প্রকল্পের রাস্তা নির্মাণ কাজে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানান সেখানে দায়িত্বরতরা।
আর এই কাজে আছেন বেশ কয়েকজন ঠিকাদার এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধি।

এলাকাবাসীর দাবী, খুরুশকুল আশ্রয়ন প্রকল্পের কাজে দীর্ঘদিন ধরে ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতি হয়ে আসছে তবে সেগুলো দেখার কেউ নেই বরং বিভিন্ন বাহিনির নাম ব্যবহার করে দাবিয়ে রাখা হয়।

১৫ জুলাই সকালে সরজমিনে শহরের বইল্যা পাড়াস্থ প্রাক্তন সিএনবি কলোনীতে গিয়ে দেখা গেছে সেখানে বেশ কয়েকজন শ্রমিক ইট ভাংছে। তাদের কাছে জানতে চাইলে জহির নামের একজন জানান,এগুলো আমরা নিলামে কিনে নিয়েছে এখন মাঠে ভেঙ্গে খুরুশকুলের কুলিয়াপাড়ায় জমা করেছি। সেখান থেকে খুরুশকুল আশ্রয়ন প্রকল্পের রাস্তা নির্মাণ কাজে এসব ইট ব্যবহার করা হচ্ছে।

পরে জহিরের কথা সূত্র ধরে কুলিয়াপাড়া শ্মশানের পাশে দিয়ে দেখা গেছে সেখনে খালী মাঠে সিএনবি কলোনীর সেই ইটগুলোর স্তুপ করা হয়েছে সেখানে কর্মরত কয়েকজন শ্রমিক জানান,এগুলো খুরুশকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। এর আগেও এসব ইট ব্যবহার করা হয়েছে। আর এসব কাজের জন্য বেশ কয়েকজন ঠিকাদার আছে বলে জানান তারা।

এ ব্যপারে খুরুশকুল কুলিয়াপাড়ার সোলাইমান নামের স্থানীয় যুবক বলেন, খুরুশকুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজে দীর্ঘদিন ধরে বহু অনিয়ম হয়ে আসছে সেগুলো এখন আর বলে কি হবে কারন কাজতো শেষ। ইতোমধ্যে স্থাণীয় জনপ্রতিনিধি সেই আশ্রয়ণ প্রকল্পকে ঘিরে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। নির্বাচনের আগে এবং বর্তমান অবস্থা দেখলেই সব বুঝা যাবে। আবার এগুলো নিয়ে কেউ প্রতিবাদও করতে পারেনা। শুনেছি বিভিন্ন বাহিনির ভয় দেখিয়ে সবাইকে চুপ করিয়ে দেয়।

খুরুশকুল ইউনিয়নের বর্তমান এক জনপ্রতিনিধি জানান,বাংলাদেশ সরকার উপর থেকে ঠিকই জনগনের জন্য বরাদ্ধ করে কিন্তু মাঠে পর্যায়ে এসে তার কয়েক ভাগ মাত্র পৌছে। আর বর্তমানে খুরুশকুল আশ্রয়ন প্রকল্পে যে হাজার কোটি টাকার কাজ হচ্ছে সেখানে বেশির ভাগ কাজই হচ্ছে খুবই নিম্নমানের। আর সব কাজের দায়িত্ব আমাদের শীর্ষ জনপ্রতিনিধির। তার উপরে এখানে কেউ কথা বলতে পারেনা। কেউ সামান্য প্রতিবাদ করলেই নেমে আসে বিভিন্ন নির্যাতন।

Top