izmir kizlar
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

কলাতলী সুগন্ধা পয়েন্টে ব্যবসায়ী ও পুলিশের মুখোমুখি সংঘর্ষঃ সাংবাদিকসহ আহত ১০

IMG_20201017_164833.jpg

মো.শাহাদত হোছাইন।।

উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুসারে কক্সবাজারের কলাতলী সুগন্ধা পয়েন্টের ৫২ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে গিয়ে ব্যবসায়ী ও পুলিশের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে যমুনা টিভির কক্সবাজার প্রতিনিধি নুরুল করিম রাসেল ও চ্যানেল এসটিভির প্রতিনিধি ইকবাল বাহারসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে।

শনিবার (১৭ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৩টায় বুলডোজার দিয়ে দোকানপাটগুলো গুড়িয়ে দেয়ার মুহূর্তে এ ঘটনা ঘটে।

পুর্ব ঘোষণার আলোকে প্রশাসনের যৌথ টিম অভিযানে গিযে ব্যবসায়ীদের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়। এসময় অবৈধ দখলদার ও বহিরাগত কিছু লোকজন জড়ো হয়ে স্থাপনাগুলোর সামনে অবস্থান নেয় এবং কাপনের কাপড় পড়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ ও প্রতিরোধ থামাতে ফাঁকা গুলি, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল ছুঁড়ে পুলিশ। এসময় পুলিশ ও অবৈধ দখলদারদের মধ্যে সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল, টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে হ্যান্ডমাইকে বারবার সতর্ক ও দোকানের মালামাল সরিয়ে ফেলার কথা বলা হলেও অবৈধ দখলদাররা তা শুনেনি। এক পর্যায়ে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে প্রশাসন উচ্ছেদ কার্যক্রম শুরু করলে উভয়ের পক্ষে সংঘর্ষ হয়। পুলিশের উপর উপর্যুপুরি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে অবৈধ দখলদাররা।

স্থানীয় অবৈধ দখলদারদের পক্ষ থেকে দাবী করা হয়েছে, এই সংঘর্ষে তাদের অন্তত ১৪ জন আহত হয়েছেন এবং আটক হয়েছেন ১০ জন ব্যবসায়ী। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ যৌথ অভিযান পরিচালনা করেন। এতে ছিলেন- কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব আবু জাফর রাশেদ, কক্সবাজার সদর সহকারি কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ শাহরিয়ার মোক্তার, কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনির উল গীয়াসের নেতৃত্বাধীন টিম।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার অভিযানে গিয়ে অবৈধ দখলদারদের বাধার সম্মুখীন হলে ফের ২৪ ঘন্টায় মালামাল সরানোর সময় বেধে দিয়ে সরে আসে প্রশাসন।

Top