izmir kizlar
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের পুর্ণাঙ্গ কমিটিতে টাকা দিয়ে কাউকে পদ দেয়া হবে না

FB_IMG_1604865743595.jpg

বিশেষ প্রতিবেদক।।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করেছে নবগঠিত কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ।

রোববার সকাল ১১টায় শহীদ দৌলত ময়দানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে দিনব্যাপী কর্মসূচী শুরু করা হয়।

কর্মসূচীতে সভাপতি এস এম সাদ্দাম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানসহ নবগঠিত জেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ অংশ নেন।

এসময় নবগঠিত কমিটির সহ সভাপতি মঈন উদ্দিন, বোরহান উদ্দিন খোকন, মুন্না চৌধুরী, নারিমা জাহান। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, সাখাওয়াত হোসেন, সাজ্জাদুল হক। সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াসিফ কবির, কামরুজ্জামান হিরু, এহসানুল হক মিলন, নাজমুল হকসহ জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, নেতৃবৃন্দ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বধ্যভূমিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। কমিটির নবযাত্রা হিসেবে কমিটির নেতৃবৃন্দ দেশ গড়তে অবদান রাখা এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে শপথ গ্রহণ করেন।

এসব কর্মসূচীতে অংশ নেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান, মহেশখালী কুতুবদিয়া আসনের সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক, সদর-রামু আসনের সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলসহ জেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন স্থরের নেতারা।

কর্মসূচীর অংশ হিসেবে প্রয়াত সাবেক জেলা আওয়ামী লীগের আমরণ সভাপতি ও মুুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম মোজাম্মেল হক, সাবেক সাংসদ ও রাষ্ট্রদূত ওসমান সরওয়ার আলম চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. একে আহমদ হোসাইন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম চৌধুরী, সাবেক গভর্নর প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা এড. জহিরুল ইসলাম এবং সাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা হুসাইন মুহাম্মদ রিফাতের কবর জিয়ারত করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

কর্মসূচী শেষে সাংবাদিকদের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান বলেন, বাঙ্গালী জাতির প্রাণের স্পন্দন দেশের গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর হাতেগড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কক্সবাজার জেলা শাখার মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আমাদের। ছাত্রলীগের অভিভাবক এবং কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যোগ্য মনে করেছে বলেই আমাদেরকে এরই গুরু দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। আমরা এই দায়িত্ব পালনে কোনো ধরণের অবহেলা করবো না। আমরা অতীতের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগকে আরো সুসংগঠিত করতে প্রাণপণ চেষ্টা করবো। জেলা থেকে তৃনমূল পর্যন্ত সাংগঠনিক কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করতে আমরা সবাই এক যোগে কাজ করবো।

সভাপতি এস.এম সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘মাননীয় প্রধামন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য্য আমাদেরকে কক্সবাজারের মতো একটি জেলার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছেন। এই দায়িত্ব একটি পবিত্র আমানত হিসেবে গ্রহণ করেছি। আমরা জেলার ৭১ টি ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে কার্যক্রম শুরু করবো। টাকা দিয়ে পদ দেয়ারতো প্রশ্নই আসে না; শুধুমাত্র পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ড দিয়েও পদ দেয়া হবে না। কারো রেফারেন্স দিয়েও পদ পাওয়া যাবে না। শুধুমাত্র পরিচ্ছন্ন, নিয়মিত ছাত্র ও মাঠে কাজ করা ত্যাগী কর্মীদের নিয়ে আমরা পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবো।’

Top