izmir kizlar
porno izle sex hikaye
çorum sürücü kursu malatya reklam inönü üniversitesi taban puanları

মগনামায় ভূমিদস্যুর নেতৃত্বে নিরীহদের বসতঘরে গুলি বর্ষণ:হামলা-লুটপাঠ

IMG_20201110_005609.jpg

পেকুয়া প্রতিনিধি।।

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের মরিচ্যাদিয়া গ্রামে স্থানীয় চিহ্নিত ভূমিদস্যুর নেতৃত্বে হামলার ঘটনায় মামলা নিচ্ছেনা পুলিশ! প্রভাবশালী মহলের চাপে হামলায় আহত নিরীহ লোকজনের বিরুদ্ধে উল্টো মামলা নিয়েছে পেকুয়া থানা পুলিশ।

গত ১ নভেম্বর (রোববার) সন্ধ্যা ৬ টার দিকে উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের মরিচ্যাদিয়া গ্রামে জমি জবর দখলে নিতে কয়েকটি নিরীহ পবিবারের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের ইন্দনে একদল ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনায় কয়েকটি অসহায় পরিবারের ৩ সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছে।গুলিবিদ্ধরা হলেন, মগনামা ইউনিয়নের মরিচ্যাদিয়া গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের পুত্র নুর উদ্দিন (৬০), তার ভাই মফিজ (৫২), ভাই নুরুস সোলতান (৩০)। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে প্রথমে পেকুয়া সরকারী হাসপাতাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।

স্থানীয়দের সুত্র জানায়,মরিচ্যাদিয়া গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের পুত্র নুর উদ্দিন গং ১৮ শতক জমি জবর দখলের জন্য দীর্ঘদিন ধরে জোর চেষ্টা করছিল মৃত সিরাজের পুত্র ছৈয়দ নুর গং। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে প্রায় সময় উত্তেজনা দেখা দিত। নুরুল ইসলামের পুত্র নুর উদ্দিন গং ওই জায়গা ৭০ বছর থেকে ভোগ দখলে আছে। তবে দিয়ারা রেকর্ডে জায়গাটি অন্য জনের নামে ভূলে প্রচার হয়। এর পর নুর উদ্দিন গং দিয়ারা সংশোধনের জন্য আদালতে মামলা করে। ওই জমির প্রতি লোভে পড়ে সিরাজের পুত্র ছৈয়দ নুর দিয়ারা মুলে ওই ১৮ শতক জমি ক্রয় করেছে মর্মে জবর দখলে মরিয়া হয়ে উঠে।

ঘটনার দিন বিকেলে ছৈয়দ নুর বহিরাগত লোকজনসহ ওই জমি জবর দখলের জন্য নুর উদ্দিনের বসতভিটা ও জায়গায় অবৈধ অনুপ্রবেশ করে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে কয়েকটি পরিবারের বসতঘর ভাংচুর, লুটপাঠ, নারী শিশুদের উপর বেপরোয়া হামলা চালায়। ভূমিদস্যু ছৈয়দ নুর শতাধিক ভাড়াটে সন্ত্রাসী এনে নুর উদ্দিনের বসত বাড়িসহ তার আশে পাশের আত্মীয় স্বজনের সব বাড়ি ঘরে বেপরোয়া হামলা চালায়। হামলায় নুর উদ্দিনসহ ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়।

গুলিবিদ্ধ নুর উদ্দিন জানান, এ জায়গা আমাদের পরিবারের ভোগ দখলীয় সম্পত্তি। ছৈয়দ নুর ও তার ছেলে জসিমের নেতৃত্বে শতাধিক ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা মরিচ্যাদিয়ায় এসে জমি জবর দখলের চেষ্টা চালায়। স্থানীয় একজন প্রভাবশালী মূলত ছৈয়দ নুরের পক্ষে প্রভাব বিস্তার করে জমি কেড়ে নেওয়ার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে।

এদিকে, ঘটনার পর অসহায় নুর উদ্দিনের ভাই মফিজুর রহমানের স্ত্রী ফয়েজ খাতুন ১৯ জনের বিরুদ্ধে পেকুয়া থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন।

ফয়েজ খাতুন অভিযোগ করেছেন, তাদের বসতবাড়িতে হামলা, ভাংচুর, লুটপাঠ, গুলিবর্ষণ, নারী ও শিশুদের উপর নির্যাতনের ঘটনায় জড়িতদের আসামী করে তিনি নিজে বাদী হয়ে পেকুয়া থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। আসামীর তালিকায় স্থানীয় প্রভাবশালী ও টাকাওয়ালা লোক থাকায় থানা পুলিশ গত ১০ দিনেও আমার এজাহারখানা মামলা হিসেবে রেকর্ড করেনি। উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করেছে পেকুয়া থানা পুলিশ। মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের পরিবারের সবাইকে এলাকা ছাড়া করে ছৈয়দ নুর আবারো আমাদের বসতঘরে হামলার প্রস্তস্তি নিচ্ছে।

ফয়েজ খাতুন আরো জানান, সন্ত্রাসীরা ৩ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেছে। নুর উদ্দিনের হাতে গুলি লাগে। নুরুস সোলতানের পায়ে গুলি লাগে। মফিজের হাতে গুলি লাগে। এতকিছুর পরেও পেকুয়া থানা পুলিশ আমাদের উপর হামলাকারী ভূমিদস্যু ছৈয়দ নুরের পুত্র আব্বাস উদ্দিনের দায়েরকৃত মিথ্যা ও বানোয়াট এজাহার দায়ের করলে সেটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করেছে। তিনি এ ঘটনায় পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাসহ কক্সবাজার জেলার পুলিশ সুপারের নিকট জরুরী হস্থক্ষেপ চেয়েছেন।

Top